ইসলামিক টেররিসম এর বিরুদ্ধে একাকী এক যোদ্ধা - A LONE FIGHTER AGAISNT THE ISLAMIC TERRORISM

ইসলামিক টেররিসম এর বিরুদ্ধে একাকী এক যোদ্ধা 



হলি ফ্যামিলি হাসপাতালের তিন তলার বাহাত্তুর নম্বর কেবিনে নিস্তব্ধ নিশ্চুপ আধারে ঘুম ভাঙ্গলো রাতুলের ; উঠতে যেয়ে উপলব্ধি করলো অর সারা বুকে ও পিঠে বেন্ডেজ ; হাতের মমুষ্ঠিতে পাচ ছয়টা সুই ঢুকানো, কেমন করে সে এল এইখানে ?

তিন দিন ধরে প্রাণ পন চেষ্টা করেও কুপোকাত ধরাশাহী করতে পারতে পারতে ও পারলনা ওই নিসংশ পশু টাকে ; ধানমন্ডি - সেই পনের নম্বরের পুরান অর্কেওলোজি সাইট থেকে এক বিশাল আকৃতির ৬ ফুট ৮ ইঞ্চি লম্বা মানুষটাকে; নাম তার - খোদা বক্স ; এক পাকিস্তানি সিক্রেট সার্ভিস এজেন্ট- কারাটে - জুডো - মার্শাল আর্ট এবং সারভাইভাল এক্সপার্ট ; পাক আর্মির এক এস এস জি অপারেটিভ ;

বাংলাদেশ কে পুনরায় পাকিস্তানি মন ভাবাপন্ন করে তোলা এবং আত্মঘাতী বিভিন্ন অভিযান চালিয়ে তা অনান্য বিভিন্ন মতাবিলোম্বী দলের ঘাড়ে দোষ চাপিয়ে দেয়াই এবং কন্ফুসিওন  সৃষ্টি আর কাজ;
তার সহযোগীদের অভাব নাই ; রামপুরা; মোহাম্মদপুর; কলতা বাজার এর গোপন আস্থানা ; আজ প্রায় তিন মাস যাবত মায়ানমার হয়ে - টেকনাফ দিয়ে রাবেতা ইসলাম ও অন্যান্য সহযোগী সংস্থার সাহায্যে এর অনুপ্রবেশ ;

উপর্জোপরি কয়েকটি নাশকতা মূলক কাজ সে ইতিমধ্যে করে ফেলেছেও ; রাতের আধারে পরচুলা চুল আর দাড়ি লাগিয়ে সে বিভিন্ন মখ্তব এবং মসজিদেও উর্দু; আরবি ; ফার্সি তে হাদিস এবং ধর্ম ও ধর্মের বিপদজনক অবস্থার নাকি বক্তৃতাও দিয়েছে ;  এবং তার নুরানী চেহারা - এবং ভাষায় পারদর্শিতায় মুদ্ধ যুবক সমাজ; জীবন  যেখানে আশাহীন , নিরাশা, শিক্ষা যেখানে অশিক্ষায় নিমিজ্জিত, অভাব আর মডার্ন জীবন যাপন করতেই যান ওষ্ঠাগত ; তখন এই সব স্বপ্নিল স্বপ্ন, বিচ্ছিদ্র অপরূপ ভবিষৎ এর রপরেখা ও এ ডভেঞ্চার মোহের মত আকৃস্ট করে এই যুবকদের।

রাতুল ; ২৫ বছরের এক যুবক; সদ্য একটা পেশা থেকে সরে এসে  ; খুলেছে তার স্বপ্নের বাসনা ; একটি প্রাইভেট ইনভেস্টিগেশন ব্যবসা।

পৈত্রিক অনেক অকেজো জমি বিক্রি করে সে ইস্রায়েল- জার্মানি  এবং আমেরিকাতে ট্রেনিং নিয়ে এসে খুলেছে
 এই প্রাইভেট কোম্পানি ; বেশ কয়েক তা মাল্টি নেশনাল কোম্পানি তার ক্লায়েন্ট ; ব্যবসা রম রমা ; বারিধারায় তার ছোট অফিস আর আছে তার  কোম্পানির সার্ভিলেন্স কর্পোরেট হেড কোয়াটার  ; নাম না জানা এক অজ্ঞাত স্থানে ;  তার ব্যবসার অপর পার্টনার তার ইহুদি - মুসলিম- ফ্রেঞ্চ ও পালেস্তিনে  বংসৌদ্বুদ্ধ গার্লফ্রেন্ড নাতাশা ইয়াসমিন কাপালানস্কি।

এই প্রথম আন্তর্জাতিক কাজ; তা  ও আবার ; এস্পীয়নাজ, টেররিস্ট সম্পর্কিত ; মালটা থেকে রাতুলের বন্ধু ফিল ; ফিল কেবল ইমেইল এ এই নতুন এসায়ন্মেন্ট দিয়েছে,  টার্গেট কে যে ভাবেই পারো  NUTRALIZE  করেত হবে ; প্রায় ১৫০ হাজার ডলারের কন্ট্রাক্ট ;

রাতুলের মনে পড়ল তার নানার মুখে শোনা সে লোমহর্ষক দিন গুলোর কথা;  ধীরে ধীরে তার মুখের হার গুলো পেশির ক্ষিপ্রতায় শক্ত হতে শুরু করলো; হাসপাতালে ঘুমিয়ে সময় কাটানো এক জন মোসাদ এবং সীল প্রশিক্ষিত অপেরাটিভের জন্য নয়.........



আস্তে করে সুই গুলো একে একে বের করলো রাতুল অন্নিরুদ্ধ ;শার্প একটা বেথা অনুভূত হলো অর পাজরে ; হোটেল সোনার গা'র নয়্ তোলা লিফট সেফ্ট আর ভিতর পরাজিত খোদা বক্স ' পাকিস্তানি আর্মির পর্ক্রামশালী অপারেটিভ এস এস জির গ্যারিসন সার্জেন্ট মেজর খোদা  বক্স খান  হিলাল ই ইমতিয়াজ, ১৯৯৯ এ চাকরি শেষ করে সৌদি আরাবিয়ার উদ্দেশে পারি জমায় এই পাষণ্ড নর ঘাতক - পর্যায় ক্রমে ; ড্রাগ, মহিলা পাচার, জনবল পাচার অস্ত্র বিক্রয়  , থেকে শুরু করে সকল ধরনের কাজেই  ওর জুরি নাই। শেষ পর্যন্ত- তার বাবার মরন্স্তল ওকে ধর্ম ব্যবসার প্রলোভনে এনে হাজির কর লো সেই ঢাকায় ; ১৯৭১ সালে অর পিতা ১৪ ডিভিসনের হেড কোয়াটার  এর   জেকিউএম  ইকবাল বক্স খানের পরিসমাপ্তিও হয়েছিল এই ঢাকাতেই ;

নয় তালা থেকে লাফ মেরে নামতে গিয়ে পাজরের তিন হাড়ে বেথা পেয়ে ধরাশাহী হয়ে পরে রাতুল; হোটেলের কর্মচারীরা গেস্ট মনে করে পাশেই হলিফামিলি হসপাতালে ভর্তি করিয়ে দেয়।


ব্রিগেডিয়ার ওসমান খালিদের সাথে খোদা বক্স বসে চা পান করছিল  মাল্টার সেই প্রসিদ্ধ পাচ তারকা হোটেল গ্র্যান্ড হোটেলের লবিতে। ভুট্টোর খাস পেয়ারের বান্দা ওসমান খালিদ - দুর্দান্ত বুদ্ধিমান ,চতুর অফিসার এই ওসমান খালিদ ;পাকিস্তান অক্ষুন্ন রাখাকে মনে করে ওর একটা জন্মগত দায়িত্ব।  তুর্কি তে এক সময় পাকিস্তানের সামরিক এটাচে  ছিল; পাকিস্তানের আনবিক বোমার সরজ্ঞাম যোগার করার পেছনে ওর  অনেক অবদান - খোদা বক্স  জানত অনেক কিছু; কিন্তু কখনই জানত না যে খালিদ আজ কাল এম আই ফাইভ এর একজন ডাবলক্রস ; অঢেল পয়সা, প্রেসিডেনশিয়াল সুইটে তার বিশাল সি ভিউ রুম, সাথে অপূর্ব সুন্দরী পাটের আশের মত ব্লন্ড চুল ওলা সুন্দরী পি এ সুসান কোয়েন।  অনর্গল ইংরেজি, ফ্রেঞ্চ ,হিব্রু, এরাবিক ভাষায় কথা বলতে পারদর্শি  কে- সত্তর উত্তর খালেদের পি এ থেকে - রাতের সজ্জা সঙ্গিনী মনে হয় বেশি; কামনা যৌবন,নিতম্ব,উন্নাসিক উগ্র বক্ষদুগল উপচে পরে যাচ্ছে যেন বক্ষ বন্ধনীর তৃতীয় বন্ধনী থেকে ; এক বিশাল নেটওয়ার্ক এর মারপেচ এ হবু ডুবু খাচ্ছে ওরা তিন জনই ; কে কার দলের কার কি পরিচয়? কে কার বন্ধু, কে কাকে কত টুকু বিশ্বাস করতে পারে? এটাই গ্র্যান্ড হোটেলের লবির সোফায় তিন জনকেই ত্রিভুজের তিন বাহুর মত ভাবিয়ে তুলছে।

হাতে হোটেলের রুমের ক্রেডিট কার্ডের মত চাবি, নতুন পাসপোর্ট লিবিয়ান , ক্রেডিট কার্ড, নগদ এক এনভেলপ ভর্তি ডলার এবং পাউন্ড নোট - বিরতি মিটিং এর সকাল ১১ টায় আবার দেখা হবে মাস্ট ইন্টার নেসনালের অফিস এ - মেরি টাইম  অ্যাসেট এন্ড সিকিউরিটি ইন্টারন্যাশনাল ;

বিছানায় সটান হয়ে শুয়ে শুয়ে ঘুম প্রায়  আসন্ন ; দরজায় মৃদু নক; নিজের অজান্তেই লুকিয়ে যেয়ে দরজা খুলে ধরল খোদা বক্স - সামনে দাড়িয়ে  আছে অপরুপা সেই সুসানা; বলল , আমি তোমার জন্য স্টিম রুমের পাশে অপ্পেখা করব রাত ১০ টার  পর; যাও নিচে গিয়ে বেসমেন্টে ম্যাসেজ করিয়ে নেউ না কেন? এখানকার ম্যাসেজ বিশ্বের অন্যতম ম্যাসেজ পার্লার ;

কাপড়ের অভাব সম্বলিত একজন তুউনিসিয়ান মহিলা  ম্যাসেজ করার নাম  এ কখন যে ওর বাহুতে একটা মসুর ডালের মত মাইক্রো চিপ ঢুকিয়ে দিল ওরই অজান্তে ; হাতের বাইসেপে ছোট একটা ফোড়া জাতীয় গর্তের মধ্যে চিপস টা  ঢুকিয়ে তার উপর স্কিন গ্রাফট স্প্রে করে দিল আর বুঝার কোনো উপায়ই রইলো না কারো;


ইসলামিক রেডিকেল দের সাথে অনেক দিন যাবত উঠাবসা খোদা বক্সের ; গোপনে সে , ওই সব দোল গুলোকে রাশিয়ার বিভিন্ন দেশ থেকে অস্ত্র এবং গলা বারুদ সরবরাহ করছে সৌদি এক রাজ  পুত্রের দক্ষিন হস্ত হিসাবে, তখন থেকেই এম আই  ফাইভ এবং মোসাদের রাডারে ধরা পরে দুর্ধর্ষ এই অমানুষ নামের কলঙ্ক - নরপিশাচ খোদা বক্স খান ;

অনেক দিন অনেক কাঠ ড়ি পুড়িয়েও হাতের নাগালে পাওয়া যাচ্ছিল না এর; ই ফিট নিয়ে হাজির একদিন লন্ডনের ফরেস্ট হিলের বাসায় এক মহিলা দেখা করতে চায় - ক্লান্ত, নির্বিকার গো বেচারা ওসমান  খালিদের সাথে - ওসমান  ধরি মাছ না ছুই পানি এই সেই করে বিদায় করে দিল অতিথিকে ; ওসমান টেক্সট করে জানালো এই কাজের তার দাম এক মিলিয়ন পাউন্ড - ফি আনাগোনা ফটি পার্সেন্ট অগ্রিম ই বাকি কাজ  শেষ হলে।  ওসমান এর কাজ শুধু খোদা বক্সের সাথে মিটিং ব্যবস্থা করানো এবং পরিচয় করিয়ে দেয়া; এবং তার নেক্সট উদ্দেশ কি? কেন সে আজ বেশ কয়েক মাস যাবত লিবিয়ার বাঙালি পাড়ায় আনাগোনা করচ্ছে? কেন সে হঠাথ করে বাঙালিদের বিষয়ে এত উদ্গ্রীব - কেন সে বাংলাদেশের ম্যাপ  ঘন্টার পর ঘন্টা ধরে পরছে, দেখছে এবং লেখালেখি করছে? সে তিন বার লিবিয়ায় ব্রিটিশ এম্বাসীতে টুরিস্ট ভিসার জন্য দাড়িয়েছে কেন ?????
Post a Comment

Popular posts from this blog

'' পাহাড়ে কয়েক টা দিন ''

Bangladeshi Diaspora In the United kingdom ; an odyssey of excellence Imran A. Chowdhry

STORY ABOUT OUR LIVES IN THE ARMY WRITTEN BY MY FRIEND MAJOR KABIR